News Bangla

বৈদেশিক মুদ্রার সংকটে থাকা শ্রীলঙ্কাকে ঋণ দিলো বাংলাদেশ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বৈদেশিক মুদ্রার সংকটে থাকা শ্রীলঙ্কাকে প্রতিশ্রুত ২৫ কোটি ডলার ঋণের মধ্যে ৫ কোটি ডলার ছাড় করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। স্থানীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ ৪২৫ কোটি টাকা। এই ছাড়ের মাধ্যমে প্রথম কোনও দেশকে ঋণ দিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যবস্থাধীনে থাকা বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে এ অর্থ দেওয়া হয়েছে। শ্রীলঙ্কার অনুকূলে অর্থ ছাড়ের পর বৃহস্পতিবার(১৯ আগস্ট) দিন শেষে রিজার্ভ দাঁড়ায় ৪৬ দশমিক ৫৮ বিলিয়ন ডলার বা চার হাজার ৬৫৮ কোটি ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, শ্রীলঙ্কাকে প্রথম দফায় ৫০ মিলিয়ন বা ৫ কোটি ডলার ছাড় করা হয়েছে। প্রতিশ্রুত ঋণের বাকি অংশ দেশটির চাহিদা বিবেচনায় ছাড় করা হবে।

জানা গেছে, বাংলাদেশ ব্যাংক এবং সেন্ট্রাল ব্যাংক অব শ্রীলঙ্কার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় কারেন্সি সোয়াপ সুবিধার আওতায় তিন মাস মেয়াদে ৫ কোটি ডলার ছাড় দেওয়া হলো। এক্ষেত্রে লন্ডন আন্তঃব্যাংক অফার রেট বা লাইবরের সঙ্গে দেড় শতাংশ যোগ করে সুদ পাবে বাংলাদেশ। তিন মাসের জন্য অর্থ দেওয়া হলেও এর মেয়াদ বাড়তে পারে। শ্রীলঙ্কার আবেদনের ভিত্তিতে গত মে মাসে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে তাদের ঋণ দেওয়ার নীতিগত অনুমোদন হয়। এরপর চুক্তিনামা তৈরিসহ কিছু প্রক্রিয়া শেষে ঋণ ছাড় করা হলো।

শ্রীলঙ্কার সঙ্গে সোয়াপের ক্ষেত্রে দেশটি বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো একটি অ্যাকাউন্টে সমপরিমাণ নিজস্ব মুদ্রা রেখে ডলার নেবে। পাশাপাশি শ্রীলঙ্কার সরকার ও দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গ্যারান্টি থাকবে। পরবর্তীতে সুদসহ শ্রীলঙ্কা ডলার ফেরত দেওয়ার পর বাংলাদেশ তাদের মুদ্রা ফেরত দেবে। দেশের মধ্যেও এক ব্যাংক আরেক ব্যাংকের সঙ্গে সোয়াপ করে। সাধারণভাবে টাকা ও ডলারের সোয়াপ হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে কোনও ব্যাংক বৈদেশিক মুদ্রার সাময়িক সঙ্কটে পড়লে টাকা রেখে স্বল্প সময়ের জন্য ডলার নেয়। ওই ব্যাংকের হাতে ডলার এলে নির্ধারিত সুদসহ আবার তা পরিশোধ করতে হয়। তখন জমা টাকা ফেরত পায় ব্যাংকটি। সূত্র-বাংলা ট্রিবিউন।

ভিজিট করুন