News Bangla

বিরোধী শিবিরের মুখ মমতাই। বিপুল ভোটে জিতে ফের দাবি করল তৃণমূল

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ভবানীপুরের খেলা শেষ হবে ভারত জয়ে—প্রচারে এমন দাবি করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার রেকর্ড ব্যবধানের জয়ের পরে দলনেত্রীর সেই দাবিকে রাজনৈতিক স্তরে নিয়ে গেল তৃণমূল। লোকসভা ভোটকে নজরে রেখে বিজেপি- বিরোধী শিবিরের যোগ্যতম মুখ হিসাবে মমতার নাম সামনে নিয়ে এলেন দলের নেতারা। তবে এ দিনও তৃণমূলের এই উদ্যোগকে কটাক্ষ করেছেন বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব।

জাতীয় স্তরে বিজেপি- বিরোধী শিবিরের মুখ কে হবেন, তা নিয়ে টানাপড়েন ছিলই। বিশেষ করে বিধানসভা ভোটে এ রাজ্যে দলের সাফল্যের পরে প্রকাশ্যে সেই জোটের নেতৃত্ব দাবি করে তাতে ভিন্নমাত্রা যোগ করেছিল তৃণমূল। এ দিন ফল ঘোষণার পরে সর্বভারতীয় স্তরে তাঁদের সেই গ্রহণযোগ্যতার দিকে ইঙ্গিত করে তৃণমূলনেত্রী বলেন, ‘‘ভবানীপুরে ৪৬ শতাংশ অবাঙালি ভোটার। আমি সব ভাষাভাষির ভোট পেয়েছি। এখানে গুজরাতি, মারওয়াড়ি, বিহারি, ওড়িয়া ভাষী লোক আছে।’’ ভবানীপুরে যে ওয়ার্ডগুলি অবাঙালি অধ্যুষিত বলে চিহ্নিত, সেগুলিতেও তাঁর জয়ের কথা আলাদা করে উল্লেখ করেছেন মমতা।

তৃণমূলের বক্তব্য ছিল, কংগ্রেস বা রাহুল গাঁধী কোনও ভাবেই নরেন্দ্র মোদীর বিকল্প নন। ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একমাত্র বিশ্বাসযোগ্য মুখ হতে পারেন মমতাই। নেতা হিসেবে রাহুল সম্পর্কে তৃণমূলের এই ‘অ্যালার্জি’ নিয়ে প্রকাশ্যে আপত্তি জানিয়েছিল কংগ্রেসও। তবে ভবানীপুরের এই ফলের পরে দলের সেই বক্তব্যকে আরও জোরদার করল তৃণমূল। দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় এ দিন বলেন, ‘‘বিজেপিকে মমতা শুধু হারাননি, তাদের জায়গাও ছোট করে আনতে পেরেছেন। আমরা যে কথা বলেছি ভবানীপুরে সব ভাষা, ধর্মের মানুষ তাতে সিলমোহর দিয়েছেন। তাই বিরোধী জোটের নেতৃত্বে মমতা প্রশ্নহীন।’’ সূত্র-আনন্দবাজার।